,


সংবাদ শিরোনাম:
«» চেয়ারম্যান-মেম্বার নয়; সেনা-নৌ দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বরাদ্দ বিতরণ চায় মানুষ «» নবীগঞ্জ উপজেলায় সরকারি বরাদ্দকৃত খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শুরু করলেন- বিশ্বজিত কুমার পাল «» জগন্নাথপুর জনতাকে সচেতন করতে পুলিশের মাইকিং «» ওসি আহাদের বৃত্তাঙ্কনের সেবা নিচ্ছে গোয়াইনঘাটের জনগণ «» যশোর মণিরামপুরে এসিল্যান্ড দু’বৃদ্ধকে কানধরে উঠবস করালেন «» সিলেটে ঘরে বসে সরকারি খাদ্য সামগ্রী পাচ্ছে ১৫ শতাধিক পরিবার «» বাংলাদেশ নৌবাহিনীর”খুলনা অঞ্চলে জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম” «» করোনার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ «» এসিল্যান্ডের বিরুদ্ধে মামলা করবেন ব্যারিস্টার সুমন «» আয়ের পথ বন্ধ, গোলাপগঞ্জে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

চলচিত্র অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজলকে দেখতে তাহিরপুরে  উৎসুক জনতার ঢল

চলচিত্র অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজলকে দেখতে তাহিরপুরে  উৎসুক জনতার ঢল

 

তাহিরপুর প্রতিনিধি:

ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজলকে এক নজর দেখতে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে উৎসুক জনতার ঢল নামে। আর জনতার সেই ঢল সামলাতে হিমসিম খেতে হয়েছে তাহিরপুর থানা পুলিশকে।

রোববার (১ মার্চ) দুপুরে ঢাকা থেকে আরআর এভিয়েশনের একটি হেলিকপ্টারে করে তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নামেন মনোয়ার হোসেন ডিপজল।

এসময় তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আতিকুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল উৎসুক জনতাকে সামলাতে কাজ করে। পরে ডিপজল উৎসুক জনতার উদ্দেশ্যে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন।

জানা যায়, মনোয়ার হোসেন ডিপজল তাহিরপুর উপজেলার বড়দল (উ.) ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাসেমের আমন্ত্রণে তার গ্রামের বাড়ি উপজেলার বারহাল গ্রামে আসেন। আগামীকাল সোমবার (২ মার্চ) তিনি তাহিরপুর উপজেলার বিভিন্ন দর্শনীয় স্পটে ঘুরে দেখবেন।

প্রসঙ্গত, ১৯৫৮ সালের ১৫ জুন ঢাকার মিরপুরের বাগবাড়িতে জন্ম নেয়া ডিপজলের চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ ঘটেছিলো নায়ক হিসেবে। প্রথম ছবি ‘টাকার পাহাড়’। ‘হাবিলদার’-এও নায়ক ছিলেন। এরপর দীর্ঘ বিরতি। কাজী হায়াৎ পরিচালিত ‘তেজী’র (১৯৯৮) মাধ্যমে ডিপজল ভিলেন হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে আলোচনায় আসেন। তখন ডিপজল মানেই ছবি হিট। টানা কয়েক বছর খলনায়ক হিসেবে দাপটের সঙ্গে অভিনয় করার পর আবার ছেদ পড়ে।

‘দুলাভাই জিন্দাবাদ’ ছবির চার অভিনয়শিল্পী ২০০৪ সালে এফ আই মানিকের ‘কোটি টাকার কাবিন’ ছবি দিয়ে নতুনরূপে হাজির হন ডিপজল। উপহার দেন ‘দাদীমা’, ‘চাচ্চু’, ‘পিতার আসন’ প্রভৃতি ছবিগুলো। এ সময়ের ডিপজলের কাজগুলো চলচ্চিত্রের ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। কারণ এ সময়েই গল্পের মূল চরিত্রে অভিনয় করে সুস্থধারা ও ব্যবসাসফল ছবিতে অবদান রাখতে সক্ষম হন ডিপজল।

Share

Comments are closed.