,


সংবাদ শিরোনাম:
«» তাহিরপুরে পারিবারিক কলহের জের ধরে বিষপানে এক নারীর আত্মহত্যা «» সাঈদীর মুক্তি চেয়ে পদ হারিয়েছেন ছাত্রলীগ নেতা «» তাহিরপুরে নদী থেকে যুবলীগ সভাপতির বালু উত্তোলন «» তামাবিলে অসহায় শ্রমিকদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ «» সিলেট জেলা পুলিশের উদ্যোগে গোলাপগঞ্জে হত দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ «» তাহিরপুরে সর্দি কাশিতে গার্মেন্টস কর্মীর মৃত্যুঃ পুরো ফেমিলি লকডাউন, এলাকায় আতঙ্ক «» ধর্মপাশা উপজেলায় ৫ হাজার অসহায় ও কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ «» জগন্নাথপুরে লোকসমাগমে বিয়ের আয়োজন,কনের বাবাকে অর্থদণ্ড «» তামাবিলে অসহায় শ্রমিকদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ «» খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে তৈরি হচ্ছে: হ্যান্ড স্যানিটাইজার

দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তনই নারীর ক্ষমতায়ন ও সমতা অর্জনের জন্য অপরিহার্য: রাজু দাশ 

দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তনই নারীর ক্ষমতায়ন ও সমতা অর্জনের জন্য অপরিহার্য: রাজু দাশ 

নারীর ক্ষমতায়ন, নারীর জাগরণ এবং নারীর সমতা অর্জনের জন্য এখন আমরা সর্বত্র কথা বলি এরই সাথে সাথে নীতি-প্রনয়নের ক্ষেত্রেও পদক্ষেপ গ্রহন করছি। বর্তমান সময়ে এ বিষয়টি আর্ন্তজাতিক পর্যায়ের মতো করে আমাদের দেশের মতো উন্নয়নশীল দেশেও গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা হচ্ছে। বিগত কয়েক বছর ধরেই দেখছি নারীর ক্ষমতায়ন এবং সমতাকে বাস্তবায়ন করতে আমরা আর্ন্তজাতিক নারী দিবস পালন করছি বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যেমে ।
আমরা সবাই জানি যে; শিল্পবিপ্লবের আগে দারিদ্র্যকে জীবনের অংশবিশেষ হিসেবে ধরা হতো। আর সেই দারিদ্র্যতার পেছনে অন্যতম যে কারণটি ছিলো তা হলো নারীকে ঘরের বাহিরে যাওয়া সুযোগ দেওয়া হতনা শুধু তাই নয় তাদের যোগ্যতা অনুযায়ী কর্মক্ষেত্রে অংশগ্রহন করতে দেওয়া হতনা। তাদেরকে তাদের যোগ্য স্থান থেকে বঞ্চিত করা হতো।
আমরা যদি “টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি)” এর ১৭ টি গোলের ১৬৯ টি সুনিদিষ্ট লক্ষ্যের ভিওিতে ১৯৩ টি দেশে নারীর ক্ষমতায়ন এবং সমতা বাস্তবায়নের কথা চিন্তা করি তাহলে তা হতে পরবর্তী দুদশকেও সম্ভব হবে বলে আমার মনে হয় না,কারণ আমাদের দেশের নারীর যে বয়সে বিয়ে হওয়ার কথা সেখানে সেই নারীরা হচ্ছে শাশুড়ী ।

দেশে মোট জনসংখ্যার অর্ধেক নারী। শিক্ষার হারেও নারী পুরুষ প্রায় সমান সমান এবং সাথে সাথে কর্মক্ষেত্রে অংশগ্রহনও বেড়েছে অনেকটাই। কিন্তু তাদের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন আমরা আনতে পারিনি যে তারা নারী না তারাও আমাদের মানে পুরুষের মত মানুষ। যেখানে স্বাধীনতার পর থেকে শ্রমশক্তিতে নারীর অংশগ্রহন ৪ শতাংশ থেকে ৩৭ শতাংশে কাছাকাছি গিয়ে দাড়িয়েছে এবং এর মধ্যে আছে উন্নয়নকর্মী, সরকারী কর্মজীবী, সংবাদকর্মী, পুলিশসহ অন্যান্য তাছাড়া অনানুষ্টানিক কাজ তো বাদই দিলাম যেখানে প্রায় অধিকাংশ নারী কাজ করে থাকেন।
এজন্যই কাজী নজরুল ইসলাম বলেছিলেন বিশ্বে যা কিছু মহান সৃষ্টি চির কল্যানকর অর্ধেক তার করিয়াছে নারী অর্ধেক তার নর।

এই প্রেক্ষাপট থেকে আমরা আমাদেরকে উওরণ করার জন্য কিছু সুনিদিষ্ট জায়গাতে আমাদের পরিবর্তন আনতে হবে। সেটা শুরু করতে হবে আমার ব্যক্তিগত দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তনের মাধ্যমে এবং তার বিস্তার পরিবার থেকে শুরু করে সমাজে। এর মাধ্যমেই আমরা আমাদেরকে মানব হিসেবে প্রতিষ্ট্রিত করতে পারবো যেখানে দিবস ‍উৎযাপনের প্রয়োজন হবেনা মানবিকতাই যথেষ্ট।

এই বিশ্বাসের পেছনে প্রধান কারন হচ্ছে এ পৃথিবীতে এখনো অনেক ভালো দৃষ্টিভঙ্গি সম্পন্ন মানুষ আছেন যাদের হাত ধরে সারা পৃথিবীর পরিবর্তন হবে এবং নারীর মর্যাদা হবে প্রতিষ্টিত এবং যাতে করেই আমাদের সার্বিক উন্নয়ন সাধিত হবে।

 

Share

Comments are closed.