,


সংবাদ শিরোনাম:

কে নিবে নিহত রেনুর ছেলে-মেয়ের দায়িত্ব ?

কে নিবে নিহত রেনুর ছেলে-মেয়ের দায়িত্ব ?

 

সিলেট সমাচার :: গত ২০ জুলাই, ঢাকা রাজধানী বাড্ডায় ছেলেধরা গুজবে তাসলিমা বেগম রেনুকে (৪২) পিটিয়ে হত্যা করা হয়। উল্লেখ্য যে, গত শনিবার সকালে বাড্ডায় একটি স্কুলে নিজের মেয়ে তুবা কে ভর্তি বা তথ্য সংগ্রহ করার জন্য রেণু যান, কিন্তু, বিপোরোয়া কিছু লোক সন্দেহভাজন হয়ে প্রধান শিক্ষকের রুম থেকে টেনে হিছড়ে নিয়ে গিয়ে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করে। এরপর থেকে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগে ভাইরাল হয়ে যায় এই হত্যা কান্ড।

নিহত তাসলিমা বেগম রেনু দুটি সন্তান রেখে মারা যাওয়ার পর তার ছেলে – মেয়েদের জীবনে আসে দুর্বিষহ। ছোট মেয়ে তুবা, এখনও বুঝে না মৃত্যু কি? তাই পথ চেয়ে বসে আছে মা কখন আসবে বাসায়। জিজ্ঞেস করলেই কেঁদে কেঁদে উত্তর দিচ্ছে, মা নিচে গেছে। তুবা তো জানে না তার মা পৃথিবীর সব মায়া, ছোট্ট আদরের সোনামনিকে ছেড়ে চলে গেছে না ফেরার দেশে! তবুও মানুষ বাঁচবে বা বাচার স্বপ্ন দেখবে যতক্ষণ দেহে আছে প্রাণ। কিন্তু তুবা নিতান্তই একটা নিষ্পাপ শিশু, এই শিশুর দায়িত্ব নিবে কে? এমনি অনেক প্রশ্ন নিয়ে মানবিক আবেদন নিয়ে পাশে দাড়িয়েছে, বাংলাদেশের সবচেয়ে আলোচিত ব্যাক্তি, যে অন্যায়ের বিরুদ্ধে আপোষহীন, সত্যের সন্ধানে অগ্রপথিক, বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে নিবেদিত অগ্র সৈনিক, ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন।

অবোধ ছোট্ট মামনি তুবার পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন।  সমগ্র পৃথিবীর মানুষের কাছে জানাতে চান, এই ছোট্ট তুবার দোষ কি? কেন তার মাকে গুজবের কারণে মৃত্যুবরণ করতে হলো? যে কারণে একটা পরিবারের অন্ধকার নেমে এসেছে। এখানে একটি প্রাণীর মৃত্যুহয়নি হয়েছে একটি গোটা পরিবার। আর জাতি হয়েছে নির্লজ্জ। কে নিবে এই দুটি সন্তানের দায়িত্ব? হত্যা করার আগে কখনো কি চিন্তা করেছেন এই হত্যা যদি আপনাদের কোন পরিবারের সদস্যের হতো তাহলে বুঝতেন, মা হারানো কি কষ্ট।

 

তিনি আরো জানান, দেশবাসীর কাছে বিনীতভাবে অনুরোধ জানান, গুজবে কান না দেওয়ার জন্য। সন্দেহ হলে পুলিশের হাতে তুলে দিন, আইন হাতে নিবেন না।

Share

Comments are closed.