,


সংবাদ শিরোনাম:
«» ধর্মপাশা চেয়ারম্যান কতৃক শিতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ উপস্থিত এম পি রতন «» গোলাপগঞ্জের পৌর এলাকায় পল্লী বিদ্যুতের উদ্যোগে উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত «» প্রথম পর্যায়ে ১০ হাজার ৭৮৯ রাজাকারের তালিকা প্রকাশ «» মধ্যনগর রামধানা ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট কতৃক মসজিদ নির্মাণ  «» সিলেট থিয়েটার মুরারিচাঁদ আয়োজিত ” পথ নাটক ও সাংস্কৃতিক উৎসব ” সম্পন্ন «» তাহিরপুরে লেপ-তোষকের দোকানে অগ্নিকান্ডে দুই লাখ টাকার ক্ষয় ক্ষতি «» তাহিরপুরে সবজি চাষ করে স্বাবলম্বী হচ্ছেন বেকাররা «» শাবি শিক্ষার্থীদের পাটকল শ্রমিকের ১১ দফা আদায়ে মৌনমিছিল ও মানববন্ধন «» শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশবিদ্যালয়:- প্রেস বিজ্ঞপ্তি «» মধ্যনগর বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে এম পি রতন এর বিনম্র শ্রদ্ধা’র’ মিছিল

বায়েক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে স্বজনদের আর্তনাদ

বায়েক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে স্বজনদের আর্তনাদ

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতদের স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠেছে বায়েক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) সদস্যরা নিহতদের হাতের আঙুলের ছাপ নিয়ে পরিচয় শনাক্ত করছেন।

হাহাকারে ছেয়ে গেছে বিদ্যালয়টার চারপাশ। মরদেহ দেখে কান্নায় ভেঙে পড়ছেন কারও বাবা, ভাই ও মা।

দুর্ঘটনায় বাবা মুজিবুর রহমান ও মা কুলসুমা বেগমের মৃত্যুর খবর পেয়ে চাঁদপুর থেকে বায়েক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছুটে এসেছেন কাউসার। বাবা-মায়ের মরদেহ দেখে কেঁদে ওঠেন তিনি।

কাউসার বলেন,বাবা মুজিবুর রহমান মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে খাতা-কলম ফেরি করে বিক্রি করতেন। মঙ্গলবার উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনে চাঁদপুর ফিরছিলেন। কিন্তু বাড়ি আর ফেরা হলো না। আমি এতিম হয়ে গেলাম।

 

 

উদয়ন ট্রেনের যাত্রী হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার মদনমোরদ এলাকার শামীম হোসেন জানান,তিনি ও ভাই আল-আমিন এবং মামা মনু মিয়াকে নিয়ে হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ স্টেশন থেকে উদয়নে উঠেছিলেন। চট্টগ্রামে তারা তিনজনই রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। ট্রেনে আসন না পাওয়ায় বগির দুই দরজায় তারা দাঁড়িয়েছিলেন। হুট করে বিকট শব্দ হলে তিনি মামাকে নিয়ে লাফিয়ে নিচে পড়ে যান। এরপর খুঁজতে থাকেন ভাই আল-আমিনকে। অনেক খোঁজাখুঁজির পর ট্রেনের চাকার নিচ থেকে তার মরদেহ বের করা হয়। ভাইয়ের মৃত্যুর খবর পেয়ে মা কান্নায় ভেঙে পড়েন। তাকে এখন স্যালাইন দিয়ে রাখা হয়েছে।

 

প্রসঙ্গত, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা অভিমুখী তূর্ণা নিশীথার সঙ্গে সিলেট থেকে চট্টগ্রাম অভিমুখী উদয়ন এক্সপ্রেসের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৬-এ দাঁড়িয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে শতাধিক যাত্রী।

Share

Comments are closed.