,


সংবাদ শিরোনাম:

আমার দেখা প্রবীণাঙ্গণ দেশের মধ্যে একটি ব্যতিক্রমী উদ্যোগ–এম এ মান্নান

আমার দেখা প্রবীণাঙ্গণ দেশের মধ্যে একটি ব্যতিক্রমী উদ্যোগএম এ মান্নান

আব্দুস সামাদ আজাদ, মৌলভীবাজার:  
আমার দেখা প্রবীণাঙ্গণ দেশের মধ্যে একটি ব্যতিক্রমী উদ্যোগ।দেশে এখন উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় এগিয়ে চলছে। এসকল উন্নয়ন কর্মকান্ড এখন বক্তৃতার বিষয় নয়। পরিসংখ্যান দেখলেই তা অনুমেয়। ওই পরিসংখ্যানই বলে দিবে দেশের উন্নয়ন অগ্রগতি কোথায় এগিয়ে চলছে। অভ্যাস বসত কিছু লোক এই উন্নয়ন অস্বীকার করছে। তাদের চোখে এই উন্নয়ন ধরা পড়েনা। এরা লোভী ও রাজনৈতিক স্বার্থপর। এরাই দেশকে জঙ্গীবাদ ও মৌলবাদের দিকে উসকে দিতে চায়। আর তারাই জঙ্গীবাদ ও মৌলবাদের আশ্রয় প্রশ্রয়দাতা। দেশের এই উন্নয়ন অগ্রযাত্রা এগিয়ে নিতে তিনি সকলের সহযোগিতা চান।
শনিবার ৩০ নভেম্বর বিকেলে জ্যেষ্ঠ নাগরিকদের আড্ডাস্থল ‘প্রবীণাঙ্গণ’ এর উদ্বোধনকালে এ কথা বলেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি।
শনিবার ৩০ নভেম্বর বিকেলে জ্যেষ্ঠ নাগরিকদের আড্ডাস্থল ‘প্রবীণাঙ্গণ’ এর উদ্বোধন করেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি। এর পর প্রবীণঙ্গাণটি আনুষ্ঠানিক ভাবে সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। প্রবীণঙ্গাণে নানা জাতের ফুলের সৌরভ আর প্রজাপতির ওঠাওড়ি মনকাড়া দৃশ্যে এখন মুগ্ধ হচ্ছেন সব বয়সের মানুষ।
জানা যায় পৌরসভার নিজস্ব অর্থায়ন এবং ব্যক্তি পর্যায়ের অনুদান থেকে এই স্থানটিকে দৃষ্টিনন্দন করে সাজানো হয়েছে। যাতে বয়োজ্যেষ্ঠ নাগরিকরা সকাল ও বিকেল এখানে এসে ঘুরে, আড্ডা দিয়ে, বই পড়ে, খেলাধুলা করে সময় কাটাতে পারেন। স্থানটিকে দৃষ্টিনন্দন করতে লাগানো হচ্ছে,গোলাপ, হাছনাহেনা,  বকুল, রাধাচুড়া, কৃষ্ণচুড়া, টেকোমা. স্থলপদ্মসহ বাহারী রকমারী মৌসুমি-স্থায়ী ও স্থানীয় নানা জাতের ফুল।
তিনটি কক্ষকে নতুন করে সংস্কার করা হয়েছে। এই কক্ষগুলোর মধ্যে রয়েছে পাঠাগার, যে খানে থাকছে সব ধরনের বইয়ের সমাহার, রয়েছে টেলিভিশন ও বিশ্রামের ব্যবস্থা। থাকছে দুটি শয্যা থাকবে। বয়স্ক নাগরিকরা হাঁটাচলা ও খেলাধুলা করে ক্লান্ত হলে ওখানে বিশ্রাম নিবেন। বয়োজ্যেষ্ঠ নারীদের জন্য রয়েছে একটি কক্ষ। এই কক্ষে নারীরা বিশ্রাম নিবেন, আড্ডা দিবেন। এর বাইরে তিনটি শেড স্থাপন করা হয়েছে। এতে থাকছে বেঞ্চ। ওখানে বসে আড্ডা দিতে পারবেন প্রবীণরা। এছাড়া উমুক্ত স্থানে আছে বসার বেঞ্চ। রয়েছে পত্রিকা ও চা-কফি কর্ণার। রয়েছে ডায়বেটিক, পেশার মাপার ব্যবস্থা ও প্রাথমিক চিকিৎসা। মিউজিক প্ল্যায়ারে চলবে জনপ্রিয় পুরোন দিনের বাংলা গান।
প্রবীণঙ্গাণ এলাকায় রয়েছে মুক্ত মঞ্চ। যে খানে ছোট ছোট সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করার রয়েছে চমৎকার আয়োজন।  ভোর থেকে সকাল ৯টা এবং বিকেল চারটা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত স্থানটি উন্মুক্ত থাকবে। নতুন করে সাজানো অংশটি জনমিলন কেন্দ্রের মূল ভবন থেকে আলাদা করে দেওয়া হয়েছে। যাতে জনমিলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠানাদি হলেও এখানকার আড্ডায় কোনো ব্যাঘাত সৃষ্টি না হয়।
শনিবার বিকেলে পৌর মেয়র ও জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফজলুর রহমান এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভা শেষে প্রধান অতিথি হিসেবে জ্যেষ্ঠ নাগরিকদের আড্ডাস্থল ‘প্রবীণাঙ্গণ’ এর উদ্বোধন করেন পরিকল্পনা মন্ত্রী  এম এ মান্নান এমপি।  বিশেষ অথিতি ছিলেন মৌলভীবাজার-৩ (সদর-রাজনগর) আসনের সংসদ সদস্য নেছার আহমদ, ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মল্লিকা দে, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান  আলহাজ আজিজুর রহমান, পুলিশ সুপার ফারুক আহমদ পিপিএম (বার), সিভিল সার্জন মোঃ শাহাজান কবির, জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক আলহাজ মিছবাহুর রহমান, মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সালেহ এলাহী কুটি, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট এএসএম আজাদুর রহমান, পৌর কাউন্সিলর মনবীর রায় মঞ্জু, আসাদ হোসেন মক্কু, প্রবীণদের পক্ষে অ্যাডভোকেট সৈয়দ জয়নাল আবেদীন, প্রমথ রঞ্জন পাল, ডা: নাজনীন আক্তার বক্তব্য রাখেন।
এসময় মন্ত্রী মেডিকেল কলেজ, বেরী লেইক, প্রেসক্লাব ভবন, কুদালীছড়া, আইনজীবী ভবনসহ স্থানীয়দের নানা দাবিদাওয়া বাস্তবায়নে তার সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্ঠা অব্যাহত থাকবে বলে আশ্বস্ত করেন।
সভপতির বক্তব্যে মেয়র ফজলুর রহমান বলেন পৌরসভার নানা উন্নয়ন কর্মকান্ড অব্যাহত রয়েছে প্রবীণাঙ্গণ এই ধারাবাহিকতার একটি। অচিরেই শান্তিভাগে তরুণ ও নবীণদের জন্য ওয়াইফাই জোনসহ বিনোদনের নানা আয়োজনের উপকরণ নির্মিত হবে। তিনি বলেন এখন পৌরসভার উদ্যোগে ৬০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ দৃশ্যমান হয়েছে। এই সরকার উন্নয়নের সরকার। খুব শিগগিরই পৌরসভার উন্নয়ন কাজ শত কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে তিনি নাগরিকদের আশ্বস্ত করেন। মেয়র পৌর নাগরিকদের উন্নয়ন কর্মকান্ডে অতীতের মত সার্বিক সহযোগিতার উদাত্ত আহবান জানান।

 

Share

Comments are closed.